ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ৪ ফাল্গুন ১৪২৮, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

পাঁচ লাখ পর্যটককে ফি ছাড়া ভিসা দেবে ভারত

ভারতের অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ জানিয়েছেন, ভ্রমণের জন্য পর্যটন ভিসা চালু হলে প্রথম পাঁচ লাখ পর্যটকের কাছ থেকে কোনও ভিসা ফি নেওয়া হবে না

পাঁচ লাখ পর্যটককে ফি ছাড়া ভিসা দেবে ভারত

কোভিড-পরবর্তী পরিস্থিতিতে পর্যটনশিল্পের হাল ফেরাতে নতুন উদ্যোগ নিচ্ছে ভারত সরকার। দেশটির অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ গত সোমবার জানিয়েছেন, ভ্রমণের জন্য পর্যটন ভিসা চালু হলে প্রথম পাঁচ লাখ পর্যটকের কাছ থেকে কোনও ভিসা ফি নেওয়া হবে না। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

২০২২ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত এই ব্যবস্থা চালু থাকবে। অবশ্য এর আগেই পাঁচ লাখ পর্যটককে ভিসা দেওয়া হয়ে গেলে আলাদা কথা।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সরকারিভাবে জানানো হয়েছে, এই ভিসা ফি বাবদ সরকারের আদায় কমবে ১০০ কোটি রুপি। কিন্তু এর মাধ্যমে পর্যটনশিল্পকে চাঙা করে তোলা যাবে।

সরকারি হিসাব অনুযায়ী, কোভিড শুরুর আগে ২০১৯ সালে এক কোটি ৯৩ হাজার পর্যটক ভারতে ভ্রমণ করেছেন। তারা ভারতে ৩০ বিলিয়নের বেশি ডলার খরচ করেছেন। গড়ে একেকজন পর্যটক ২১ দিন থাকেন। তারা দৈনিক গড়ে খরচ করেন ৩৪ ডলার বা দুই হাজার ৪০০ রুপি।

কোভিডের কারণে ভারতের অর্থনীতি বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। অবস্থায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত পর্যটনশিল্পকে চাঙা করতে সরকারের এমন সিদ্ধান্ত। অর্থনীতিকে ঘুরে দাঁড়াতে সাহায্য করতে গতকাল মঙ্গলবার অর্থমন্ত্রী যে আট দফা পরিকল্পনার কথা ঘোষণা করেন, পর্যটনশিল্পের জন্য ব্যবস্থা তার অন্যতম।

বিনা মূল্যে পাঁচ লাখ পর্যটন ভিসা দেওয়ার পাশাপাশি এই শিল্পের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের আর্থিক সাহায্যের কথাও অর্থমন্ত্রী জানিয়েছেন। পর্যটন মন্ত্রণালয়ের স্বীকৃতি পাওয়া ১০ হাজার ৭০০ গাইড বিভিন্ন রাজ্যে রয়েছেন।

সরকার-স্বীকৃত ট্রাভেল ট্যুরিস্ট এজেন্সির সংখ্যা প্রায় এক হাজার। এসব সংস্থাকে কেন্দ্রীয় সরকার ১০ লাখ রুপি পর্যন্ত ঋণ দেবে, যাতে তারা দেনা শোধ করে নতুনভাবে ব্যবসা শুরু করতে পারে। গাইডদের এক লাখ রুপি করে ঋণ দেওয়া হবে। এই ঋণ পেতে কোনো কিছু বন্ধক রাখতে হবে না। ঋণের জন্য কোনো ফি দিতে হবে না বলে সরকারি বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।


   আরও সংবাদ